কোন বিষয় নিয়ে পড়লে ভালো চাকরি পাওয়া যাবে । Top 10 subject to study for best and assured job

0
201
best subject for getting asured job

কোন বিষয় নিয়ে পড়লে ভালো চাকরি পাওয়া যাবে এ বিষয়ে যদি আপনি সঠিক পরামর্শ পেতে চান , তাহলে এই অনুচ্ছেদটি খুঁটিয়ে পড়ুন ও শেষ পর্যন্ত ভালো করে পড়ুন।

বর্তমান সময়ে পড়াশুনার একাধিক রাস্তা সৃষ্টি হয়েছে আবার চাকরিরও বিভিন্ন প্রকার অপশন তৈরী হয়েছে। তাই , খুব স্বাভাবিকভাবেই সিদ্ধান্ত নিতে গিয়ে নানানপ্রকার দ্বিধা বা কনফিউশন সৃষ্টি হচ্ছে। আবার সাবজেক্ট বা বিষয়ে নির্ধারণের ক্ষেত্রে ভুল সিদ্ধান্ত হয়ে গেলে সারাজীবন সেই ভুল বয়ে বেড়াতে হয়।

তাই ছাত্র -ছাত্রীরা যাতে ভুল না করে তার জন্য এই অনুচ্ছেদটি লেখার সিদ্ধান্ত নিলাম।

✅🔥🔥এরকম আরোও বিপুল বেসরকারি -সরকারি চাকরির খবর পেতে ক্লিক করুন

মাধ্যমিক পাশে সমস্ত লেটেস্ট সরকারি চাকরির খবর দেখুন
উচ্চমাধ্যমিক পাশে সমস্ত লেটেস্ট সরকারি চাকরির খবর দেখুন
গ্রাজুয়েট/স্নাতক পাশে সমস্ত লেটেস্ট সরকারি চাকরির খবরদেখুন
ইঞ্জিনীরিং পাশে লেটেস্ট সরকারি চাকরির খবর দেখুন
শিক্ষাবিভাগের লেটেস্ট সরকারি চাকরির খবর দেখুন
স্বাস্থ্য বিভাগের লেটেস্ট সরকারি চাকরির খবর দেখুন
GK, কারেন্ট অ্যাফেয়ার্স ,পরীক্ষা প্রস্তুতি দেখুন
সমস্ত লেটেস্ট চাকরির খবর দেখুন
বেসরকারি -সরকারি চাকরির খবর । government job news

কোন বিষয় নিয়ে পড়লে ভালো চাকরি পাওয়া যাবে এ বিষয়ে জানার আগে আপনার জানা উচিত কোন চাকরিগুলি আমরা ভালো চাকরি বলতে পারি বা কি কি বিষয় একটি চাকরির মধ্যে থাকলে তা আমরা ভালো চাকরি হিসেবে গণ্য করতে পারি। তবে, বৃত্তিনির্ভর পড়াশুনা করার আগে আপনার ইটা জানা দরকার যে যেকোনো বিষয় নিয়ে পড়লেই ও গ্রাজুয়েট হলেই আপনি যদি WBCS , SSC , UPSC, NTPC, Bank Exam ইত্যাদির যেকোনো একটি পরীক্ষা পাশ করতে পারেন ও একটি ভালো বেতনের স্থায়ী সরকারি চাকরি পেতে পারেন। সেক্ষেত্রে তখন কিন্তু আপনি কোন বিষয় নিয়য়ে পড়লেন সেটা বিচার্য হয় না।

✌️ 🔥 বিঃ দ্রঃ : আপনি যদি সমস্ত চাকরির নোটিশ সবার আগেই পেতে চান তাহলে আমাদের টেলিগ্রাম চ্যানেল এ এখনই যুক্ত হয়ে যান।

Join Our  Telegram Channel CLICK HERE
Notification updateCLICK HERE
সমস্ত চাকরির খবর ও প্রস্তুতি এক ক্লিকেই

তবে, পড়াশুনার ক্যারিয়ার এর শুরুর দিকেই আপনি যদি জেনে যান কোন বিষয় নিয়ে পড়লে ভালো চাকরি পাওয়া যাবে, তাহলে আপনার জন্য অনেক বেশি পথ খোলা থাকবে।

একজন সরকারি চাকরিজীবী হিসেবে আমার মনে হয় যে আমি আপনাদের সুপরামর্শ দিতে পারবো। চলুন, মূল আলোচনার মধ্যে এবার এগোনো যাক।

বর্তমান সময়ে বাজারচলতি বিভিন্ন পড়াশুনার বিষয়গুলির মধ্যে কোন বিষয় নিয়ে পড়লে ভালো চাকরি পাওয়া যাবে দ্রুত ?

দ্রুত ভালো চাকরি পেতে গেলে একটু আধুনিক বিষয় নিয়ে পড়তে হবে। তাহলে চাকরি পাওয়া সহজ হবে। কোনো প্রোডাক্ট কিংবা কোনো বিষয় সে যাই হোক ” বাজারে চলবে কি চলবে না ” ইটা নির্ধারণ করে একটি প্যারামিটার তা হলো Demand and Supply অর্থাৎ চাহিদা ও উৎপাদন। তাই যে সব বিষয় নতুন সেগুলিতে ডিগ্ৰীধারী ল্পকের সংখ্যা অনেক কম। ফলে ডিমান্ড এর তুলনায় সাপ্লাই অনেকটাই কম থাকছে। তাই বাজারে ভালো চলবে।

তাই কোন বিষয় নিয়ে পড়লে ভালো চাকরি পাওয়া যাবে এর পুরো রহস্যটাই রয়েছে ডিমান্ড ও সাপ্লাই এর উপর। এই ফর্মুলা জেনে একটু রিসার্চ করলেই জানা যাবে কোন বিষয় নিয়ে পড়লে ভালো চাকরি পাওয়া যাবে দ্রুত।

Agriculture বা কৃষিকাজ এর বিজ্ঞান
cardiac care technology
EMERGENCY MEDICAL TECHNICIAN
DENTAL TECHNICIAN
C.T.SCAN TECHNICIAN
Optometry
Microbiology
Food Technology
Management MBA/BBA
Computer Application-BCA/MCA
Medical-BDS and MBBS
Nursing B.Sc. and M.Sc. in Nursing
Comparative literature
Data Science / Statistics
Fashion Designing
Interior Designing

কোন কোন বৈশিষ্ট্য থাকলে আমরা একটি চাকরিকে ভালো চাকরি বলতে পারি ?

বিভিন্ন মানুষের পছন্দ বিভিন্ন রকম। কেউ পড়াতে ভালোবাসে , আবার কেউ শাসনমূলক কাজের সাথে নিজেকে যুক্ত রাখতে ভালোবাসেন। কেউ চিকিৎসা করতে ভালোবাসেন আবার কেউ ম্যানেজ করতে পছন্দ করেন। নিজের পছন্দ অনুযায়ী পড়াশুনা করলে অবশ্যই সেই বিষয়ে ভালো চাকরি পাবেন।

উপরে বেশ কয়েকটি পড়াশুনার বিষয়ের বিবরণ দেওয়া থাকলো , আপনি আপনার পছন্দের বিষয়ের সাথে মিলযুক্ত একটি বিষয় বেছে নিন ও সেই বিষয়ে পরবর্তী ডিগ্রী করতে পারেন।

কিন্তু প্রতিটি বিষয়ের বিস্তারিত বিবরণ দেওয়ার আগে জানা প্রয়োজন কোন কোন বৈশিষ্ট্য থাকলে একটি চাকরিকে আমরা ভালো চাকরি বলতে পারি।

১. বেতন :

বেশিরভাগ ক্ষেত্রে যেকোনো চাকরির প্রধান আকর্ষণ হলো সেই চাকরির বেতন। তবে বেতন আবার খুব একটি আপেক্ষিক বিষয়। অর্থাৎ , কত টাকা মাসিক বেতন যে একজন মানুষ কে খুশি করতে পারে , তার কোনো সঠিক ও নির্ধারিত সীমারেখা নেই। তবে সার্বিকভাবে আমার মনে হয় অন্ততঃ চল্লিশ হাজারটাকা মাসিক বেতন যেকোনো চাকরির প্রাথমিক পর্যায়ের বেতন হয় উচিত।

এর থেকে যত বেশি বেতন হবে ততটাই ভালো।

চাকরিতে সংযুক্ত হওয়ার আগে ভালোভাবে আপনাকে জেনে নিতে হবে যে , আপনি যে চাকরিতে সংযুক্ত হতে চলছেন তার বেতন কত , তা না করলে, পরে আপনি চাকরিতে জয়েন করে সুখী হতে পারবেন না।

২. বদলি :

কোন বিষয় নিয়ে পড়লে ভালো চাকরি পাওয়া যাবে, এটা জানাটা যেমন জরুরি, তেমনই যে চাকরির জন্য আপনি চেষ্টা করছেন, সেই চাকরির transfer policy বা বদলির নিয়মগুলি ভালোকরে জেনে নিন। যে সকল চাকরিতে বদলি খুব কম সময়ের ব্যবধানে হয়ে থাকে সেই সব চাকরি আমাদের বিচারে ভালো চাকরি নয়। তবে অনেকেই হয়তো খুব নতুন নতুন জায়গাতে যেতে ও ঘুরতে ভালোবাসেন সেক্ষেত্রে হয়তো তাদের দ্রুত বদলির চাকরি ভালো লাগতে পারে।

৩.সরকারি না বেসরকারি :

সাধারণত সরকারি চাকরিই অপেক্ষাকৃত ভালো চাকরি। সরকারি চাকরির এমন অনেক সুযোগ সুবিধা আছে যা বেসরকারি চাকরিতে আপনি পাবেন না।

সরকারি চাকরিতে বেতন কিছুটা কম হয় তবে সেই তুলনায় খাটুনিও কম থাকে। অর্থাৎ আপনি নিজের জন্য অনেকটাই সময় বের করতে পারবেন। ফলে , নিজের ক্যারিয়ার নিয়ে আরো বেশি করে ভাবার সুযোগ পাবেন।

এছাড়া।, স্থায়ী সরকারি চাকরিতে একটা নিশ্চয়তা আছে, যা বেসরকারি চাকরিতে নেই। নির্দিষ্ট সময় অন্তর আপনার স্যালারি বাড়বে। প্রতি বছর ইনক্রিমেন্ট এর মাধ্যমে আপনার স্যালারি বাড়তে থাকবে।

ছুটি পাওয়া নিয়ে খুব একটা সমস্যা থাকে না। ছুটির দিনে আপনাকে কাজ করতে হয় না। পুরো মাত্রায় ছুটি উপভোগ করতে পারবেন। তাই সময় সরকারি অফিসার হওয়ার চেষ্টা করুন। অবশেষে না পেলে বেসরকারী দিকে যান।

বিষয় ১ : কোন বিষয় নিয়ে পড়লে ভালো চাকরি পাওয়া যাবে

মেডিকেল :

আমাদের এই লিস্ট এ আমরা মেডিকেল বা MBBS এর পড়াশুনা কে একদম প্রথমেই রাখলাম। তার কারণ হলো এই MBBS বা মেডিকেল এর পড়াশুনাতে যেমন পড়াশুনার পর চাকরি পাওয়ার চান্স খুব তেমনই প্রাইভেট প্রাকটিস-এরও ভালো একটা মার্কেট রয়েছে। তবে এখন চিকিৎসক হয়ে জীবন অতিবাহিত করার ছাত্রের সংখ্যা আগের থেকে অনেকটাই কমেছে। এর কারণ হিসেবে আমার মনে হয় সম্প্রতি সংবাদ মাধ্যমে পর পর প্রকাশিত হওয়া বেশ কয়েকটি চিকিৎসক পেটানোর ঘটনা। এছাড়া, শুধু MBBS করেও আগের মতো খুব নাম ডাক ওয়ালা চিকিৎসক হওয়া যাচ্ছে না।

কিন্তু এতসব সমস্যার মধ্যেও চিকিৎসকের Demand খুব একটা কমছে না ও সমাজে সম্মান ও যথেষ্ট রয়েছে।

তাই ক্যারিয়ার হিসেবে এই বিষয়কে আমি প্রথম স্থানে রাখলাম।

কিন্তু সমস্যা তো আনা জায়গাতে। চিকিৎসক হতে অনেকেই চান কিন্তু সরকারি মেডিকেল কলেজের সীমিত আসন সংখ্যায় নির্বাচিত হতে গেলে যে বিপুল মেধার প্রয়োজন তা সবার মধ্যে নেই। তাহলে কি চিকিস্তক হওয়ার রাস্তা বন্ধ ?

না। একেবারেই তা নয়।

প্রাইভেট মেডিকেল কলেজগুলিতেও MBBS পড়া যেতে পারে এবং তা মোটেই খারাপ সিদ্ধান্ত নয়। এছাড়া প্রাইভেট মেডিকেল কলেজ এ পড়া চিকিৎসকেরা ভালো চিকিৎসা করতে পারেন না সেটা বললেও ভুল বলা হবে। বর্তমানে ভারতবর্ষের সবথেকে জনপ্রিয় চিকিৎসক ও হৃদরোগ বিশেষজ্ঞ ডঃ দেবী শেট্টি তিনি কোনো সরকারি মেডিকেল কলেজ থেকে MBBS ডিগ্রী লাভ করেন নি। তিনি বেসরকারি মেডিকেল কলেজ কস্তুরবা মেডিকেল কলেজ থেকে তাঁর MBBS ডিগ্রী লাভ করেছেন।

তাহলে এটা বোঝা যাচ্ছে যে MBBS ডিগ্রির ক্ষেত্রে কলেজটি সরকারি না বেসরকারি তা খুব একটা প্রাধান্য পাচ্ছে না।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here