Top answer: সালোকসংশ্লেষ কাকে বলে class 9 । সালোকসংশ্লেষের তাৎপর্য । সালোকসংশ্লেষ প্রক্রিয়া কাকে বলে । What is Photosynthesis

0
257
সালোকসংশ্লেষ কাকে বলে class 9
সালোকসংশ্লেষ কাকে বলে | what is photosynthesis

সালোকসংশ্লেষ কাকে বলে ও সালোকসংশ্লেষের তাৎপর্য কি এই বিষয়ে বাজারচলতি বইগুলিতে প্রায় একই রকম একঘেঁয়েমি লেখা আছে। সব থেকে সেরা লেখাটি পড়ুন এই পেজ-এ। সালোকসংশ্লেষ কাকে বলে এই বিষয়ে আমাদের এই লেখাটি একবার পড়লে আশাকরি বুঝতে পারবেন বইয়ের লেখার সাথে আমাদের লেখার কত পার্থক্য।

আসুন বিশদে জেনে নিই সালোকসংশ্লেষ কাকে বলে ও সালোকসংশ্লেষের তাৎপর্যগুলি কি কি। এই লেখাটির শেষে সালোকসংশ্লেষ pdf ফাইলটিও দেওয়া আছে , আপনি চাইলে ডাউনলোড করে পুরো লেখাটি offline-ও পড়তে পারবেন।

সূচনা : সালোকসংশ্লেষ কাকে বলে?

প্রত্যেক জীবের প্রাণধারণের জন্য প্রয়োজন শক্তি। এই শক্তির মূল উৎস হল সূর্য অর্থাৎ সৌরশক্তি। একমাত্র সবুজ উদ্ভিদেরাই সৌরশক্তিকে খাদ্য তৈরীর সময় উৎপন্ন খাদ্যের মধ্যে স্থৈতিক শক্তি রূপে আবদ্ধ করতে পারে।

জীবকুল উদ্ভিদের তৈরী খাদ্য গ্রহণ করে দেহকোষে অক্সিজেনের সহায়তায় স্থৈতিক শক্তিকে গতীয় শক্তিতে পরিণত করে এবং এই শক্তি ব্যয় করে সজীব দেহের যাবতীয় জৈবিক ক্রিয়া সম্পন্ন করে।

সালোকসংশ্লেষ কাকে বলে

সবুজ উদ্ভিদেরা যে প্রক্রিয়ায় খাদ্য উৎপাদন করে, তাকে সালোকসংশ্লেষ (photosynthesis) বলে অপরপক্ষে, দেহকোষে যে প্রক্রিয়ায় স্থৈতিক শক্তি গতীয় শক্তিতে রূপান্তরিত হয়, তাকে শ্বসন (respiration) বলে।

  • জীবদেহে প্রতিনিয়ত শ্বসন প্রক্রিয়া চলছে আর এই শ্বসনের জন্য প্রয়োজন খাদ্য এবং অক্সিজেনের। খাদ্য এবং অক্সিজেন সালোকসংশ্লেষের ফলে উৎপন্ন হয়। আবার সালোকসংশ্লেষের জন্য প্রয়োজন বায়ুমণ্ডলের কার্বন ডাই-অক্সাইড, যা শ্বসনের ফলে উৎপন্ন হয়।
  • স্থলজ সবুজ উদ্ভিদেরা মাটি থেকে মূলরোম দ্বারা জল শোষণ করে মূল ও কাণ্ডে অবস্থিত জাইলেম বাহিকার মাধ্যমে পাতার মেসোফিল কলায় প্রেরণ করে (জলজ উদ্ভিদেরা সমস্ত দেহ দিয়েই জল শোষণ করতে পারে)।
  • পাতার ত্বকে অবস্থিত পত্ররন্ধ্র দ্বারা বায়ু থেকে কার্বন ডাই-অক্সাইড গ্যাস শোষণ করে উদ্ভিদেরা পাতার মেসোফিল কলায় নিয়ে আসে (জলজ উদ্ভিদ জলে দ্রবীভূত কার্বন ডাই-অক্সাইড শোষণ করে)।
  • সূর্যালোকের উপস্থিতিতে এবং মেসোফিল কলার কোষগুলিতে বর্তমান ক্লোরোফিলের সক্রিয়তায় জল ও কার্বন ডাই-অক্সাইডের রাসায়নিক বিক্রিয়ায় পাতার কোষে উৎপন্ন হয় শর্করা (carbohydrate) জাতীয় খাদ্য গ্লুকোজ (glucose) । সবুজ উদ্ভিদ কর্তৃক পাতায় এই ধরনের খাদ্য তৈরি করার কৌশলকেই বলা হয় সালোকসংশ্লেষ। সালোকসংশ্লেষ একরকম উপচিতি বিপাক.
  • সুতরাং সালোক সংশ্লেষ ও শ্বসন পরস্পর নির্ভরশীল প্রক্রিয়া এবং জীবকুল তাদের অস্তিত্ব বজায় রাখার জন্য এই দুটি জৈবিক প্রক্রিয়ার ওপর নির্ভরশীল।

সংজ্ঞা (Definition) : সালোকসংশ্লেষ কাকে বলে । Definition of Photosynthesis in Bengali

যে শারীরবৃত্তীয় প্রক্রিয়ায় ক্লোরোফিলযুক্ত কোষে সূর্যালোকের উপস্থিতিতে এবং ক্লোরোফিলের সাহায্যে পরিবেশ থেকে শোষিত জল ও কার্বন ডাই-অক্সাইডের রাসায়নিক বিক্রিয়ার ফলে সরল শর্করা (গ্লুকোজ) সংশ্লেষিত হয় এবং উৎপন্ন খাদ্যে সৌর শক্তির আবদ্ধকরণ ঘটে এবং উপজাত বস্তুরূপে জল ও অক্সিজেন উৎপন্ন হয়, তাকে ফটোসিন্থেসিস বা সালোকসংশ্লেষ বলে।

সালোকসংশ্লেষ কাকে বলে

সালোকসংশ্লেষ কাকে বলে class 9

সালোকসংশ্লেষ কাকে বলে class 9 এর জন্য জিজ্ঞেস করলে অবশ্যই উপরে দেওয়া বড় হরফের সংজ্ঞা এবং তার সাথে সালোকসংশ্লেষ কাকে বলে তার বিক্রিয়াটিও দিতে হবে। তাই সালোকসংশ্লেষ এর রাসায়নিক বিক্রিয়ার সমীকরণটিও দেওয়া হল।

সালোকসংশ্লেষ প্রক্রিয়ার রাসায়নিক সমীকরণ :

সালোকসংশ্লেষ কাকে বলে class 9 এর জন্য জানতে চাওয়া হলে এই সালোকসংশ্লেষ প্রক্রিয়ার রাসায়নিক সমীকরণটি দিতেই হবে।

6CO2 + 12H2O = C6H12O6 + 6H2O + 6O2

৬ অনু কার্বন-ডাই-অক্সাইড + ১২ অনু জল = ১ অনু শর্করা বা গ্লুকোজ + ৬ অনু জল + ৬ অনু অক্সিজেন

সালোকসংশ্লেষ প্রক্রিয়ার রাসায়নিক সমীকরণটিতে ব্যালান্স করার জন্য কিছু অনুর সংখ্যা লেখা হয়েছে। যদি পরীক্ষাতে এই সমীকরণটি লেখার সময় এই ভাবে ব্যালান্স করে লেখা সম্ভব হয় তাহলে সমীকরণে সমান চিহ্ন ব্যবহার করা যাবে , যেমনটি এখানে আমরা ব্যবহার করেছি।

কিন্তু ব্যালান্স না করে সমীকরণটি লিখলেও চলবে , তবে সে ক্ষেত্রে মাঝে ব্যবহার করা সমান চিহ্নের জায়গাতে তির চিহ্ন ব্যবহার করা যাবে।

সালোকসংশ্লেষ শব্দের উৎপত্তি :

সালোকসংশ্লেষ বা ফটোসিন্থেসিস শব্দটি প্রচলন করেন 1898 খ্রীষ্টাব্দে বিজ্ঞানী বার্নেস (Banes)। ফটোসিন্থেসিস শব্দটি দুটি শব্দের সমন্বয়ে সৃষ্টি হয়েছে, যেমন : ফোটোস'(photos) অর্থাৎ আলো (light) এবং ‘সিন্থেসিস’ (synthesis) অর্থাৎ সংশ্লেষ (putting together)।

স + আলোক = সালোক, অর্থাৎ আলোর উপস্থিতিতে কোন কিছুর সংশ্লেষ হওয়াকে সালোক সংশ্লেষ বলে।

সালোকসংশ্লেষ-এর স্থান । Site of photosynthesis | where does photosynthesis taken place

ক্লোরোফিলযুক্ত সবুজ রঙের পাতায় উদ্ভিদের প্রধান সালোকসংশ্লেষকারী অঙ্গ। উদ্ভিদের যেকোনো সবুজ অঙ্গই সালোকসংশ্লেষ করতে পারে। তবে মূলতঃ সবুজ পাতার মেসোফিল কলার কোষগুলিই সালোকসংশ্লেষের প্রধান স্থান। এই মেসোফিল কলার কোষে থাকা ক্লোরোপ্লাস্ট অঙ্গাণুর মধ্যে সালোকসংশ্লেষ প্রক্রিয়া ঘটে।

উদ্ভিদের যে কোনো সবুজ অঙ্গেই ক্লোরোফিল থাকে আর ক্লোরোফিলযুক্ত কোষ মাত্রেই সালোকসংশ্লেষ করতে পারে।

তবে পাতা ছাড়াও কিছু উদ্ভিদের কচি সবুজ কান্ডেও সালোকসংশ্লেষ প্রক্রিয়া হতে পারে , যেমন – ফণীমনসা, লাউ, কুমড়ো , পুঁই ইত্যাদি।

ফুলের বৃতিতে , অর্কিডের সবুজ মুলে , গুলঞ্চের আত্তীকরণমূলেও সালোকসংশ্লেষ ঘটে।

আবার, এককোষী প্রাণী ইউগ্লিনা ও ক্রিসামিবা ও সালোকসংশ্লেষ করতে পারে

আবার , রডোস্পাইরিলাম ও রডোসিউডোমোনাস ইত্যাদি ব্যাক্টেরিয়াতে সবুজ রঞ্জক ক্লোরোফিল থাকায় , তারাও সালোকসংশ্লেষে সক্ষম।

কোন ব্যাকটেরিয়া সালোকসংশ্লেষ করতে পারে? which bacteria is able to do photosynthesis?

রডোস্পাইরিলাম (Rhodospirillum) ও রডোসিউডোমোনাস (Rhodopseudomonas) নামের দুটি ব্যাকেরিয়া সালোকসংশ্লেষ করতে পারে।

সালোকসংশ্লেষের তাৎপর্য কি । Importance of Photosynthesis

সালোকসংশ্লেষের তাৎপর্য কয়েকটি মাত্র পয়েন্ট এর উপর নির্ভর করে বলা কঠিন কারন সালোকসংশ্লেষের তাৎপর্য এত গুরুত্বপূর্ণ যে তা বলতে গেলে একটি পৃথক বই লেখা হয়ে যাবে।

নিচে সালোকসংশ্লেষের তাৎপর্যগুলি পয়েন্ট হিসেবে দেদোয়া হল।

১. অক্সিজেন উৎপাদন :

সালোকসংশ্লেষের তাৎপর্য বিষয়ে লিখতে গিয়ে অক্সিজেন উৎপাদন এর কথা বলতেই হয়। সমস্ত জীবকুল অক্সিজেন এর উপর নির্ভরশীল। কেবলমাত্র উদ্ভিদই অক্সিজেন প্রস্তুত করতে পারে। সালোকসংশ্লেষ চলাকালীন উদ্ভিদ মাটি থেকে মূলরোম দ্বারা শোষিত জল এর হাইড্রোজেন ও অক্সিজেন ভেঙে ইলেক্ট্রন কে ব্যবহার করে সালোকসংশ্লেষে প্রক্রিয়া চালানোর জন্য।

এই জল ভেঙে উৎপন্ন হওয়া অক্সিজেনই পরিবেশে উদ্ভিদ ত্যাগ করে। তাই সমস্ত জীবকূলকে অক্সিজেনের জন্য উদ্ভিদের সালোকসংশ্লেষের উপরেই নির্ভরশীল থাকতে হবে।

২. সমস্ত জীবকুলের খাদ্যের যোগান :

সমস্ত প্রাণীরা প্রত্যক্ষ ও পক্ষভাবে খাদ্যের জন্য উদ্ভিদের উপরেই নির্ভরশীল। সবুজ উদ্ভিদ পাতার ক্লোরোফিলের মাধ্যমে সালোকসংশ্লেষ প্রক্রিয়ায় বাতাসের কার্বন-ডাই-অক্সাইড ও মাটি থেকে মূলরোম দ্বারা শোষিত জল ব্যবহার করে খাদ্য অর্থাৎ গ্লুকোজ উত্পাদন করে। সেই glucose শর্করা বা শ্বেতসার হিসেবে উদ্ভিদ সঞ্চিত রাখে।

উদ্ভিদের ফলের শস্য অঞ্চলে এই শ্বেতসার সঞ্চিত থাকে। এছাড়া উদ্ভিদের অন্যান্য অঙ্গ প্রত্যংগেও কিছুটা সঞ্চিত থাকে।

তাই সমস্ত জীবকুল প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে খাদ্যের জন্য উদ্ভিদের সালোকসংশ্লেষের উপরেই নির্ভরশীল।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here